সোশ্যাল সিনেমা’র লক্ষ্য: জ্যঁ ভিগো

0
322
জ্যঁ ভিগো

মূল । জ্যঁ ভিগো
অনুবাদ । মাজাহারুল রাজু

অনুবাদকের নোট
জ্যঁ ভিগো সিনেমা’র সর্বশ্রেষ্ঠ শহীদদের মধ্যে অন্যতম, চলচ্চিত্রকারের চেয়েও বেশি কিছু! ভিগো চলচ্চিত্র সংস্কৃতিতে এমন একটি অধ্যায়, যা আর কখনো পুনরাবৃত্তি হবে না। নির্বাক যুগে শুটিং করা মাত্র চারটি চলচ্চিত্র আর একটি ফিচার ফিল্ম, যার প্রভাব ‘৬০-এর দশকে ঘটে যাওয়া ফরাসি নিউ ওয়েভসহ গোটা বিশ্ব সিনেমার ভবিষ্যৎ বিকাশ প্রভাবিত করে। বর্তমান পোয়েটিক রিয়ালিজমের অন্যতম আর্সানাল, হতভাগ্য এই চলচ্চিত্র নির্মাতার জন্ম ২৬ এপ্রিল ১৯০৫ সালে; মাত্র ২৯ বছর বয়সে ১৯৩৫ সালের ৫ অক্টেবর যক্ষ্মায় মৃত্যু।
‘টুয়ার্ড অ্যা সোশ্যাল সিনেমা’ জঁ ভিগো ও বরিস কাউফম্যান নির্মিত ‘আ প্রোপোজ দু নিস’ [১৯৩০], ইংরেজি ‘About Nice’ চলচ্চিত্রের দ্বিতীয় প্রদর্শনী উপলক্ষে ১৯৩০ সালের ১৪ জুন প্যারিসের ভিউকস-কলম্বিয়ার থিয়েটারে দেওয়া জ্যঁ ভিগোর বয়ান। মূল ফরাসি থেকে ইংরেজি স্টুয়ার্ট লিবম্যান। যা ১৯৭৭ সালে প্রথম মিলিনিয়াম ফিল্ম জার্নালে ছাপা হয়। এ তারই বাংলা অনুবাদ…


আপনি ঠিক চিন্তাই করছেন, যদি না আপনি মনে করেন যে আমরা একসঙ্গে আমেরিকা আবিষ্কার করব। আমি ঠিক এই মুহূর্তটি নির্দেশ করে কথা বলছি, শব্দ আমদানি বা কাগজের স্তূপ দিয়ে আপনাদেরকে আরও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করব না।

আজ আমি মোটেও উদ্বিগ্ন নই যে, সোশ্যাল সিনেমা কী? এবং তা প্রকাশ করার জন্য ফর্মুলা দিয়ে আমি সিনেমার গলা টিপে হত্যা করতে চাই না। বরং আমি আপনার সুপ্ত বাসনা জাগ্রত করার চেষ্টা করছি আর প্রায়শই ভালো চলচ্চিত্র দেখতে বলছি। হে চলচ্চিত্রকারগণ, প্রাচুর্যের জন্য আমাকে ক্ষমা করবেন, সামাজিক আচরণ এবং এর সম্পর্ক যা ব্যক্তি ও বস্তুর সঙ্গে সম্পর্ক যুক্ত।

কারণ, আপনি দেখুন, সিনেমা ত্রুটিযুক্ত চিন্তায় বেশি ভোগে, যা মোট চিন্তায় অনুপস্থিত থাকে। সিনেমায় আমরা আমাদের মনকে এমন এক পরিমার্জন দিয়ে বুঝি বা চিনি যা সাধারণত চীনারা তাদের পায়ের জন্য করে থাকে, এই অজুহাতে যে, সিনেমা গতকালই জন্মগ্রহণ করেছে। আমরা শিশুসুলভ কথা বলি, বাবার মতো বুলি আওড়ানো যেন তার প্রিয় সন্তান কাঁধে শুয়ে এবং সে শুধু তার পিতার কথাই বুঝতে পারে।


চলচ্চিত্র
একটি খনিতে
কাজ করার মতো–
যা বাস্তবতাকে নিরবচ্ছিন্নভাবে
পুনর্নবীনকরণ
করে

একটি ক্যামেরা, সর্বোপরি, শূন্যস্থান তৈরির জন্য কোনো পাম্প নয়। মূলত সামাজিক চলচ্চিত্রের দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, চলচ্চিত্র একটি খনিতে কাজ করার মতো– যা বাস্তবতাকে নিরবচ্ছিন্নভাবে পুনর্নবীনকরণ করে। এ থেকে নিজেদেরকে মুক্ত করতে হবে, যেমন দুটি জোড়া ঠোঁট, আবার একসঙ্গে করতে তিন হাজার মিটার দীর্ঘ বাঁধনহীন ফিল্ম দরকার। যা একটি ভালো চলচ্চিত্রের আধ্যাত্মিক শৈল্পিক সূক্ষ্মতায় জড়ানো, যা পরিচালকের ভাবনাকে এক অ্যাঙ্গেল থেকে বিবেচনা করে, তারপর অন্য অ্যাঙ্গেল থেকে, সর্বদাই অন্য অ্যাঙ্গেল, একটি সুপার অ্যাঙ্গেল, যেন কৌশলটির জন্যই কৌশল।

এবং চলচ্চিত্রটি আমাদের জানিয়ে দেবে যে, নীরবে আমাদের পরিচালকের সঙ্গে থাকতে হবে, বা খালি জগের মতো শব্দ না করে আমাদের সঙ্গে যুদ্ধের অভিজ্ঞতা শতভাগ ত্রিমাত্রিকভাবে তুলে ধরবে, বর্ণে, গন্ধে। অন্য ক্ষেত্রে আমরা কেন কোনো লেখকের কাছে দাবি করি না যে, আপনি আপনার সর্বশেষ উপন্যাসটি লেখার জন্য সুলেখা কলম বা ফাউন্টেন পেন ব্যবহার করবেন। বলুন?

এসব যন্ত্রপাতি ও ডিভাইসগুলো খুব অল্প টাকার মণি।

সামাজিক চলচ্চিত্রের লক্ষ্য হলো কিছু বলা এবং সিনেমায় আগত লেডিস ও জেন্টেলম্যানদের হজম সহায়তা করার বাইরে অন্যকিছুকে চিন্তা করানো। যেমন, প্রতিধ্বনি। এবং এর মাধ্যমে, আমরা সম্ভবত এম জর্জেস দুহামেলের মতো, জনসাধারণের কাছে পরিচালক ম্যাজিস্টেরিয়াল আইন ব্যবহার না করে চমৎকারভাবে নিজেদের লুকাতে পারি।

আজ, আমি আপনাদেরকে আন চিইন অ্যান্দালু, ‘An Andalusian Dog’ [১৯২৯] দেখাতে পারলে আনন্দিত হতাম, একটি ইন্টোরিয়র ড্রামা, চলচ্চিত্রটি কবিতার মতো করে বিকাশিত হয়। তবু বর্তমানে আমার মনে হয়, চলচ্চিত্রের গুণাবলী হল ঐসব সামাজিক উপাদানগুলোকে উপস্থিত করা, যা ইঙ্গিত বহন করে।

মিস্টার লুই বুনুয়েলের প্রদর্শনীর বিরোধিতা করলেন। এবং এর কারণ আছে বটে, তাই আমি আপনাদের জন্য প্রোপোজ দু নিস প্রদর্শন করতে বাধ্য হয়েছি এবং চলচ্চিত্রটি নিজেই আপনাদের কাছে উপস্থাপন করতে চাই।

আমি দুঃখিত, আন্দালুসিয়ান ডগ প্রতিটি ক্ষেত্রেই একটি গুরুত্বপূর্ণ নির্মাণ। এটির পরিচালনার দিকনির্দেশনা, লাইটিংয়ের নৈপুণ্য ও ভিজুয়াল সচেতন চলচ্চিত্রটি নিশ্চিত যে স্বপ্ন-যুক্তি যা অবচেতন এবং রেশনালের মধ্যে দ্বন্দ্ব। সর্বোপরি আমি দুঃখিত, কারণ আন্দালুসিয়ান ডগ সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে একটি নিখুঁত ও সাহসী চলচ্চিত্র। উল্লেখ্য, আমি আরও বলতে চাই, এটি একটি বিরল চলচ্চিত্র।

আমার একবারই মাত্র মিস্টার বুনুয়েলের সঙ্গে দশ মিনিটের জন্য দেখা হয়েছে। আমরা আন্দালুসিয়ান ডগ-এর চিত্রনাট্য নিয়ে আলাপ করিনি। এজন্যই স্বাধীনভাবে আমি যা খুশি তাই বলতেই পারি। এ কথাও ঠিক যে, আমার অভিমতগুলো ব্যক্তিগত। এবং সম্ভবত সত্যের কাছাকাছি পৌঁছে যাবে কোনো সন্দেহ ছাড়া, অথবা বিমূর্ত।

চলচ্চিত্রটির নামের তাৎপর্য বোঝার জন্য আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে, মিস্টার বুনুয়েল একজন স্প্যানিশ।

একটি আন্দালুসিয়ান কুকুর কাঁদছে, তাহলে কে মারা গেছে?

সিনেমাটি আমাদের তালিকাবিহীনভাবে মেনে নিতে বাধ্য করে যে, পৃথিবীতে যত ভয় পুরুষরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ করেছে, যখন আমরা পর্দায় দেখি কোনো মহিলার চোখ দুটি রেজার দিয়ে কাটা হয়, আমাদের দৃষ্টি তা সহ্য করতে পারে না। এটি গুরুতর পরীক্ষা! মেঘের মধ্যে পূর্ণিমার চাঁদ দেখার চেয়ে আরও ভয়ঙ্কর?

আমি অবশ্যই বলতে পারি, চলচ্চিত্রটি আমাদের উদাসীন রাখতে পারে না। এই প্রতিশ্রুতি দেয়, চলচ্চিত্রটি চলার সময় আমরা আমাদের চোখে প্রতিদিনের দৃশ্যের বাইরে আলাদা কিছু দেখছি এবং পুরো ছবিজুড়ে আমাদের একই অভিজ্ঞতা হবে।


গোটা
পৃথিবী
অতিরঞ্জিত
কুসংস্কারের ভরা;
আত্মত্যাগ এবং করুণভাবে রোমান্টিসাইজড

প্রথম দৃশ্যে আমরা দেখতে পাই, একটি শিশুর চেহারা, যে সাইকেলে হাতল না ধরেই রাস্তায় চলছে, হাত দুটি তার উরুর ওপর অনেকগুলি ডানার মতো সাদা ঝালট। আমরা দেখতে পাচ্ছি, আমি আবারও বলছি, একটি সংসারের সংস্পর্শে আমাদের বুদ্ধিমানতায় আমরা যা গ্রহণ করি তা আমাদের কাপুরুষে পরিণত করে। গোটা পৃথিবী অতিরঞ্জিত কুসংস্কারের ভরা; আত্মত্যাগ এবং করুণভাবে রোমান্টিসাইজড।

মিস্টার বুনুয়েল একজন ভালো তলোয়ার চালক, যিনি আমাদের পিছনে ছুরিকাঘাত করেন, আমরা দম ফুরিয়ে হাঁপাতে থাকি এবং আমাদের তিনি লাথি মারেন। চূড়ান্তভাবে অস্তিত্ব সংকট– যা ধূলিময় বিছানা ছাড়া আর কিছু নয়।

যারা ধর্ষণের আশ্রয় নিয়ে প্রেমকে ঘৃণা করে, তারা আকুল আকাঙ্ক্ষী হত্তয়া সত্বেও তাদের লাথি মারেন।
যারা ভাঁড়সর্বস্ব ছদ্মবেশযুক্ত। অন্যকে পীড়ন করে যৌনসুখ লাভের মানসিক বিকারগ্রস্তকে লাথি মারেন, এবং আসুন আমরা জোর দিয়ে নৈতিকতার লাগামগুলিকে টেনে নিয়ে আসি, এবং আপনার দেখতে পাবেন এর ভিত্তি কী।

একটি বোতলের ছিপি, এখানে, অন্তত পক্ষে একটি ভারি যুক্তি।
একটি টুপি– হতভাগ্য বুর্জোয়া।
ইকোল ক্রিশিয়েনের দুই ভাই– দরিদ্র খ্রিস্ট।
দুটি গ্র্যান্ড পিয়ানো গাদাগাদি করে, মলমূত্রের সঙ্গে আবর্জনায় পরিণত হয়েছে– আমাদের জীর্ণ সংবেদনশীলতা।
অবশেষে, গাধার ক্লোজআপ– আমরা এই আশাই করেছিলাম।

মিস্টার বুনুয়েল ভয়ানক।


এই
বর্বর
কবিতাকে
অবশ্যই সম্মান করতে হবে

তাদের জন্য লজ্জাজনক, যারা যৌবন হত্যা করে, তা কী না হতে পারত। বন ও সমুদ্র সৈকত বরাবর সন্ধান করে যেখানে বসন্তের আগমনের সঙ্গে আমাদের স্মৃতি মিশ্রিত না হওয়া অবধি আফসোস করে গুহার কুকুর। কুকুর থেকে সাবধান– এটি কামড়ায়! আমি খুব হালকা বিশ্লেষণ এড়ানোর জন্য এসব বলছি, দৃশ্যের পর দৃশ্য। যা ভালো চলচ্চিত্রের পক্ষেই সম্ভব এবং এই বর্বর কবিতাকে অবশ্যই সম্মান করতে হবে। এবং কেবল আন্দালুসিয়ান ডগ দেখার বা পুনরায় দেখার ইচ্ছাকে উৎসাহিত করবে।

একটি সামাজিক সিনেমার লক্ষ্য হলো কেবল একটি সিনেমা নির্মাণ করা, যদি এর সঙ্গে উত্তেজক বিষয়গুলির সম্পর্ক হয়, এসব বিষয়গুলি মাংসের মতো কেটে ফেলা। তবে আমি আপনাদের সঙ্গে সামাজিক সিনেমা সম্পর্কে আরও স্পষ্টভাবে কথা বলতে চাই, যেন আমি এর খুব কাছাকাছি, যেমনটা হয় তথ্যচিত্রে বা, আরও স্পষ্টভাবে– সামাজিক সিনেমা তৈরি হয় মূলত প্রামাণ্যচিত্রের দৃষ্টিকোণ দিয়ে। রাষ্ট্রকে অনুসন্ধান করা– মনে করা, ক্যামেরাই রাজা বা অন্তত প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপ্রধান।

আমি জানি না এটি শিল্পের জন্য কাজ করবে কি না, তবে আমি নিশ্চিত যে, এটি অনেক চলচ্চিত্রময় হবে; চলচ্চিত্রময় হবে এই অর্থে যে, কোনো শিল্প শুধু ফর্ম নয় এবং শুধু বিজ্ঞানও এ জায়গা নিতে পারে না।
যেকোনো ব্যক্তিকে সামাজিক ডকুমেন্টারি তৈরিতে অবশ্যই একটি রোমানিয়ান তালার কী-হোল থেকে স্লিপ করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ পাতলা হতে হবে এবং ধরে নিতে হবে, প্রিন্স ক্যারল তার বিছানায় লাফিয়ে লাফিয়ে উঠবে, ধৃষ্ট এটাই যা একটি আগ্রহী চিন্তা ও একই ধরনের দর্শন বিবেচনা করে।

যে ব্যক্তি সামাজিক প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করবে, তাকে চেয়ারের অধীনে মাপসই, সহযোগী ও যথেষ্ট ছোট হতে হবে, হতে হবে মন্টি কার্লো ক্যাসিনোর মহান দেবতা এবং বিশ্বাস করুন, এটি সহজ নয়! একটি সামাজিক তথ্যচিত্রের দৃষ্টিকোণ, একটি সাধারণ তথ্যচিত্র এবং সাপ্তাহিক সংবাদ চিত্র থেকে আলাদা– যা পরিষ্কারভাবে লেখক সমর্থন করে।

সামাজিক তথ্যচিত্র এই ধরন দাবি করে যে, একটি অবস্থান গ্রহণ করা হয়েছে, কারণ এটি আমি ও আমার ছায়া। যদি একজন শিল্পীর স্বার্থ না থাকল, কমপক্ষে একজন মানুষ হিসেবে এটা বাধ্যকারী হয়, তবে এটা মূল্যহীন। ক্যামেরার উদ্দেশ্য দলিল হিসাবে বস্তুকে বিবেচনা করা, যা সম্পাদনার সময় প্রামাণ্য হিসেবে গণ্য করা হয়। এ কথাও ঠিক যে, আত্মসচেতনমূলক অভিনয় সহ্য করা হবে না। বিষয়টি অবশ্যই ক্যামেরার অজান্তেই হবে; অন্যথায় যে সমস্ত ভালো সিনেমা আছে, তার কাছে ‘ডকুমেন্টারি’ দাবি করে সমর্পণ হতে হবে।

এবং যদি কেউ লক্ষ্য অর্জন করতে কোনো অঙ্গভঙ্গির পিছনে লুকানো কারণটি প্রকাশ করতে সফল হয়, তবে তার অভ্যন্তরীণ সৌন্দর্য বা ব্যঙ্গচিত্র বস্তা পচা ব্যক্তিত্বে পরিণত হবে। বিশুদ্ধ রূপে শারীরিক প্রকাশ একজনের কাছ থেকে সমবেত ভাব-আত্মা প্রকাশে সফল হতে পারে। এবং এসব এক ধরনের বল, যা এক সঙ্গে বিশ্বকে চাপ প্রয়োগ করে, ইতঃপূর্বে আমরা এক হয়েছি এবং আমাদের কাছে উপস্থাপন করা হবে, নিজের সত্ত্বাকে, নিজের ওপর এবং পরিচালকের বাহ্যিক উপস্থিতি ওপর। এভাবে একটি সামাজিক প্রামাণ্যচিত্র আমাদের চোখ খুলে দেয়।

আ প্রোপোজ দু নিস এই ধরনের সিনেমার একটি সাধারণ খসড়া মাত্র। এই ছবিতে, একটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার মাধ্যমে, আমরা একটি নির্দিষ্ট পৃথিবীকে সাধারণ বিচারের সাক্ষী করেছি।

প্রকৃতপ্রস্তাবে, নিস এবং তার পরিবেশ সেখানে সে অবস্থিত এবং দেখতে পাবেন জীবন আসলে অন্যত্র, হায়রে!

চলচ্চিত্রটির উৎসাহ, দেহ ও মৃত্যুর চিহ্ন যা নিসকে স্থির করে, উৎসবগুলো থেকে সাধারণকরণের দিকে চালিত করে; এগুলি নিজের সম্পর্কে সচেতনতা, এমন একটি সমাজের সর্বশেষ বিভ্রান্তি যা আপনাকে অনেক বমি করানোর জন্য যথেষ্ট। যেন আপনি একটি বিপ্লবী সমাধানের সহযোগী হয়ে ওঠেন।

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার
সিনেমাটোগ্রাফার, বাংলাদেশ ।। স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চলচ্চিত্র শিক্ষায় স্নাতক ।। প্রথম প্রোডাকশন ডিজাইন ‘চন্দ্রাবতী কথা'। ফিচার ফিল্ম [সিনেমাটোগ্রাফি] : ‘অলাতচক্র (3D)’; ‘কোড়া পাখির শুন্যে উড়াল’ ।। মোবাইল ফিল্ম [ফিল্মমেকার] : ‘ইটস মাই জব’

মন্তব্য লিখুন