আলেহান্দ্রো হোদোরোস্কির মাক্সিম ।। শয়তানকে ধ্যানে বসাও…

0
183

মাক্সিম

আলেহান্দ্রো হোদোরোস্কি

গ্রন্থনা ভি রেনে ।। অনুবাদ রুদ্র আরিফ


 

আলেহান্দ্রো হোদোরোস্কি। জন্ম : ১৭ ফেব্রুয়ারি ১৯২৯; চিলি। বর্তমানে প্যারিসবাসী চিলিয়ান-ফ্রেঞ্চ থিয়েটার ডিরেক্টর, স্ক্রিনরাইটার, নাট্যকার, অভিনেতা, লেখক, কবি, প্রডিউসার, কম্পোজার, মিউজিশিয়ান, কমিক রাইটার ও আধ্যাত্মিক গুরু। সবচেয়ে বড় পরিচয়– সহিংস পরাবাস্তব ইমেজ এবং মরমিবাদ ও ধর্মীয় উস্কানির একটি হাইব্রিড সংমিশ্রণে সৃষ্ট নিজস্ব ধারার একজন ‘আভা-গাঁর্দ’ ফিল্মমেকার। এ পর্যন্ত নির্মাণ করেছেন  দ্য ট্রান্সপোজড হেড [Les têtes interverties ; ১৯৫৭]; ফান্দো ই লিস [Fando y Lis; ১৯৬৮]; দ্য মোল [El Topo; ১৯৭০]; দ্য হলি মাউন্টেন [La montaña sagrada; ১৯৭৩]; টাস্ক [Tusk; ১৯৮০]; হলি ব্লাড [Santa Sangre; ১৯৮৯]; দ্য রেইনবো থিফ [The Rainbow Thief; ১৯৯০]; দ্য ড্যান্স অব রিয়েলিটি [La danza de la realidad; ২০১৩] ও এন্ডলেস পোয়েট্রি [Poesía sin fin; ২০১৬] শিরোনামের তুমুল এক্সপেরিমেন্টাল সিনেমাগুলো। দ্য স্পিরিচুয়াল জার্নি অব আলেহান্দ্রো হোদোরোস্কি শিরোনামের গ্রন্থে এ ফিল্মমেকার নিজের নির্মাণ-অভিজ্ঞতার কথা বলতে বলতে, ছড়িয়ে রেখেছেন বেশকিছু মাক্সিম বা গুরুকথা। চলুন, তার পাঠ নেওয়া যাক…   

 



 

আলেহান্দ্রো হোদোরোস্কি
১.
মনোযোগ ধরে রাখো নিজের ওপর। তোমার ভাবনা, সংবেদন, অনুভব, আকাঙ্ক্ষা ও কর্মের প্রতিটি মুহূর্তের প্রতি থাকো সজাগ।
২.
যা-ই করো-না-কেন শুরু, শেষ করে এসো।
৩.
যা-ই করো, যতটা সম্ভব ভালোভাবে করো।
৪.
সময় নষ্ট করে দিতে পারে– এমন কোনোকিছুর প্রতি আকৃষ্ট হয়ো না।
৫.
নিজের মহিমাকে সমৃদ্ধ করো, তবে নিবৃত্তে।
৬.
সবার সঙ্গে এমন আচরণ করো, যেন সে তোমার কাছের আত্মীয়।
৭.
নিজের যত বিশৃঙ্খলতাকে করে তোলো শৃঙ্খলাবদ্ধ।
৮.
শেখো– গ্রহণ করতে এবং প্রতিটি উপহারের প্রতি জানাতে ধন্যবাদ।
৯.
নিজেকে নিরূপন করা থামাও।
১০.
মিথ্যে বলো না কিংবা করো না চুরি– যখন মিথ্যে বলছো নিজেকে এবং চুরি করছো নিজের কাছ থেকেই।
দ্য মোল
১১.
প্রতিবেশীকে সাহায্য করো, কিন্তু তাকে তোমার ওপর নির্ভরশীল হতে দিও না।
১২.
তোমাকে যারা নকল করে, তাদের উৎসাহিত করো না।
১৩.
তৈরি করো কর্মপরিকল্পনা এবং ঘটাও তার বাস্তবায়ন।
১৪.
খুব বেশি জায়গা নিও না নিজ দখলে।
১৫.
করো না কোনো অবান্তর বিচরণ কিংবা শব্দ উৎপাদন।
১৬.
নিজের মধ্যে আস্থার ঘাটতি থাকলে, সেটি [আস্থা] থাকার ভান ধরো।
১৭.
দাপুটে কোনো ব্যক্তিত্বের প্রতি অনুরক্ত হতে দিও না নিজেকে।
১৮.
নিজেকে কারও বা কোনোকিছুরই মালিক ভেবো না।
১৯.
বিনিময়ের প্রশ্নে স্বচ্ছ থাকো।
২০.
প্রলুব্ধ করো না।
২১.
যতটুকু প্রয়োজন, কেবল ততটুকু ঘুমোও আর খাও।
২২.
নিজের ব্যক্তিগত সমস্যার কথা করো না প্রচার।
২৩.
যেসব ব্যাপারে তুমি সবচেয়ে বেশি অজ্ঞ, সেগুলো সম্পর্কে দিও না অভিমত কিংবা করো না সমালোচনা।
২৪.
অদরকারী বন্ধুত্বকে প্রতিষ্ঠা করো না।
২৫.
চলতি হাওয়ার ভাসিও না গা।
দ্য হলি মাউন্টেন
২৬.
নিজেকে বেচে দিও না।
২৭.
নিজের করা চুক্তির প্রতি সম্মান দেখাও।
২৮.
সময়ের মূল্য দিও।
২৯.
অন্য কারও সৌভাগ্য কিংবা সাফল্যে ঈর্ষাবোধ করো না কখনোই।
৩০.
প্রয়োজনের চেয়ে একটা শব্দও বেশি বলো না।
৩১.
ভেবো না, তোমার কাজ কোনো মুনাফা এনে দেবে।
৩২.
কাউকেই হুমকি দিও না কখনো।
৩৩.
কথা দিলে কথা রেখো।
৩৪.
যে কোনো আলোচনায়, নিজেকে অন্য মানুষটির জায়গায় বসিয়ে ভেবো।
৩৫.
স্বীকার করে নাও, তোমার চেয়েও বড় কেউ থাকতেই পারে।
৩৬.
কোনোকিছু পরিত্যাগ করো না, বরং ঘটিয়ে নাও রূপান্তর।
৩৭.
ভয়কে জয় করো, কেননা, এগুলোর প্রত্যেকটিই একেকটি ছদ্মবেশী আকাঙ্ক্ষার প্রতিনিধি।
৩৮.
অন্যকে সাহায্য করো তাদের প্রয়োজনেই।
৩৯.
বিদ্বেষকে জয় করো, এবং সেসবের কাছে থাকো– যেগুলো তোমাকে প্রত্যাখ্যান করার প্রেরণা জোগায়।
৪০.
তোমার সম্পর্কে অন্যরা যা-ই বলুক– হোক তা প্রশংসা কিংবা নিন্দা– গায়ে মেখো না।
দ্য রেইনবো থিফ
৪১.
নিজের গর্বকে মর্যাদায় পরিণত ঘটাও।
৪২.
নিজের রাগের রূপান্তর ঘটাও সৃজনশীলতার ভেতর।
৪৩.
নিজের ক্ষুধাকে সৌন্দর্যের প্রতি শ্রদ্ধাবোধের ভেতর রূপান্তর ঘটাও।
৪৪.
নিজের ঈর্ষার রূপান্তর ঘটাও অন্যের কাজের প্রতি মুগ্ধতার ভেতর।
৪৫.
নিজের ঘৃণার রূপান্তর ঘটাও দয়ার ভেতর।
৪৬.
করো না নিজের গুণকীর্তন কিংবা অপমান।
৪৭.
যা তোমার হয়নি, ধরে নাও তা তোমারই ছিল।
৪৮.
নালিশ করো না।
৪৯.
কল্পনাশক্তির বিকাশ ঘটাও।
৫০.
এমন কোনো নির্দেশ দিও না, যা কারও বাধ্যগত হওয়ার তৃপ্তি এনে দেবে তোমাকে।
৫১.
তোমার জন্য দেওয়া সকল শ্রমের পারিশ্রমিক দাও।
৫২.
নিজের কাজ কিংবা আইডিয়ার ঘটিও না ধর্মান্তরন।
৫৩.
দয়া, তারিফ, সমবেদনা কিংবা দুর্বোধ্যতার মতো তোমার অনুভূতিগুলো অন্য কাউকে অনুভব করানোর করো না চেষ্টা।
৫৪.
নিজের উপস্থিতি দিয়ে নিজেকে বিশিষ্ট করে তোলার চেষ্টা করো না।
৫৫.
অসত্য বলো না কখনো, বরং তার বদলে নিশ্চুপ থাকো।
হলি ব্লাড
৫৬.
দেনা জমিও না; বরং উপার্জন করে সঙ্গে সঙ্গেই শোধ করে দাও।
৫৭.
কাউকে দুঃখ দিয়ে থাকলে, ক্ষমা চেয়ে নাও; কাউকে যদি প্রকাশ্যে দুঃখ দিয়ে থাকো, তাহলে ক্ষমা চাও প্রকাশ্যেই।
৫৮.
যখন বুঝতে পারবে, তোমার কোনো কথা ভুল ছিল, ভুলটিকে আঁকড়ে ধরে থাকার গর্ব করো না; বরং সঙ্গে সঙ্গেই ফিরিয়ে নাও কথাটি।
৫৯.
তুমিই প্রকাশ করেছো– স্রেফ এ কারণে নিজের পুরনো আইডিয়াগুলোর সমর্থন করো না কখনোই।
৬০.
অপ্রয়োজনীয় কোনোকিছুকেই সঙ্গী করো না।
৬১.
অচেনা আইডিয়ায় সাজিও না নিজেকে।
৬২.
বিখ্যাতদের সঙ্গে তোলা নিজের ছবিকে সঙ্গী করো না।
৬৩.
ধরে নাও তুমি আদৌ কেউ নও, এবং নিজেকে নিজেই দিতে থাকো পরামর্শ।
৬৪.
নিজের অধিকারে থাকা কোনোকিছুকে করে তোলো না নিজের রক্ষাকবচ।
৬৫.
হয়তো তোমার মত বদলাতে পারে– এ কথাটি মাথায় না রেখে নিজের সম্পর্কে বলো না কিছু কখনোই।
৬৬.
মেনে নাও, তোমার আসলে কিছুই নেই।
৬৭.
কেউ যখন কোনোকিছু বা কারও সম্পর্কে তোমার অভিমত জানতে চায়, তখন সেটির বা তার গুণের কথাই বলো শুধু।
৬৮.
অসুখে পড়লে, অসুখকে তোমার শিক্ষক হিসেবে ধরে নাও; অপ্রিয় কোনোকিছু হিসেবে নয়।
৬৯.
তাকাও– সরাসরি; নিজেকে লুকিয়ে ফেলো না।
৭০.
মৃতদের কথা ভুলে যেও না, তবে তাদেরকে একটি সীমিত পরিসরে আটকে রাখো, এবং তাদেরকে তোমার জীবনে দিও না হানা দিতে।
এন্ডলেস পোয়েট্রি
৭১.
যেখানেই থাকো না কেন, সবসময়ই এমন একটি জায়গার করো তল্লাশ– যেখানে একান্তভাবে নিজেকে করতে পারবে নিমগ্ন।
৭২.
যখন কোনো কাজ করো, নিজের কর্ম-নিবেদনকে এমন করে তোলো– যেন সহজে চোখে পড়ে না কারও।
৭৩.
যদি অন্যদের সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকো, তবে তা করো আনন্দ নিয়ে।
৭৪.
করবে কি করবে না– এ দ্বিধায় পড়ে গেলে, করে ফেলার ঝুঁকিটা নিয়ে দেখো।
৭৫.
সবকিছুকে নিজের অধিকার করে তোলার চেষ্টা করো না; মেনে নাও, এমন অনেককিছুই রয়েছে যা তুমি দিতে পারবে না ঠিকই, তবে অন্যরা পারবে।
৭৬.
যখন কেউ কোনো আগ্রহী শ্রোতার উদ্দেশ্যে কিছু বলছে, তখন সেই লোকটির বিরোধিতা করো না, বাগিয়ে এনো না তার শ্রোতা।
৭৭.
নিজের যতটুকু উপার্জন, সে টাকাতেই জীবন কাটাও।
৭৮.
কামার্ত রোমাঞ্চের বড়াই করো না কখনোই।
৭৯.
নিজের দুর্বলতাকে মহিমান্বিত করে তোলো না।
৮০.
শুধু শুধু সময় কাটানোর জন্য কারও কাছে যেও না।
৮১.
অধিকারে থাকা সবকিছু সাজিও রাখো অন্যের সঙ্গে ভাগ করে নিতে।
৮২.
ধ্যানে বসলে যদি কোনো শয়তানের দেখা পাও, শয়তানটিকেও বসিয়ে দাও ধ্যানে।

 


গ্রন্থনা-সূত্র ।। নো ফিল্ম স্কুল । অনলাইন ফিল্ম জার্নাল । ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫
Print Friendly
শেয়ার

সম্পাদক : ফিল্মফ্রি । ঢাকা, বাংলাদেশ।। সিনেমার বই [সম্পাদনা/অনুবাদ] : ফিল্মমেকারের ভাষা [৪ খণ্ড : ইরান, লাতিন, আফ্রিকা, কোরিয়া]; ফ্রাঁসোয়া ত্রুফো : প্রেম ও দেহগ্রস্ত ফিল্মমেকার; তারকোভস্কির ডায়েরি; আন্তোনিওনির সিনে-জগত; কিয়ারোস্তামির সিনে-রাস্তা; সিনেঅলা [২ খণ্ড] ।। কবিতার বই : ওপেন এয়ার কনসার্টের কবিতা; র‍্যাম্পমডেলের বাথটাবে অন্ধ কচ্ছপ; হাড়ের গ্যারেজ ।। মিউজিকের বই [অনুবাদ] : আমার জন লেনন [মূল : সিনথিয়া লেনন]

মন্তব্য লিখুন